সুতরার বিধান কি এবং এর সীমা কতটুকু?

0

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম। পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি-

sutra

প্রশ্ন :

সুতরার বিধান কি এবং এর সীমা কতটুকু?

উত্তর :

নামাযে দণ্ডায়মান হওয়ার সময় পুরুষ-নারী সবার জন্যই সামনে সুতরা (বেড়া দণ্ড) রাখা সুন্নতে মুআক্কাদা।

জামাতে নামায পড়ার সময় ইমামের সামনে সুতরা রাখলেই যথেষ্ট; মুক্তাদিদের সামনে সুতরা থাকার প্রয়োজন নাই। আর একাকী নামায আদায় করলে প্রত্যেকেই সামনে সুতরা রেখে নামায আদায় করবে।

সুতরাং নামাযী ব্যক্তিকে চেষ্টা করতে হবে দেয়াল, খুঁটি, খাট, টেবিল, বুকশেলফ ইত্যাদির কাছাকাছি গিয়ে অথবা সম্মুখে প্রায় পৌনে এক হাত বা তার চেয়ে কিছু কম বা বেশি উঁচু সম্পন্ন কোন জিনিস (যেমন কুরআনের রেহেল, বোতল, লাঠি জাতীয় কোন জিনিস) রেখে নামায পড়ার।

যথাসম্ভব সুতরা ছাড়া নামায আদায় করা উচিৎ নয়:

এর বিভিন্ন উপকারিতা রয়েছে। তন্মধ্যে একটি হল, শয়তান সালাতে মনোযোগ নষ্ট করতে পারে না। যার ফলে মনে ভয়-ভীতি ও নম্রতা সহকারে সালাত আদায় করা যায়। যেমন হাদিসে বর্ণিত হয়েছে:

إِذَا صَلَّى أَحَدُكُمْ إِلَى سُتْرَةٍ فَلْيَدْنُ مِنْهَا لَا يَقْطَعُ الشَّيْطَانُ عَلَيْهِ صَلَاتَهُ

“তোমাদের কেউ সু্তরা স্থাপন করে সলাত আদায় করলে যেন সু্তরার কাছাকাছি দাঁড়ায়। যাতে করে শয়তান তার সলাত ভঙ্গ করতে না পারে।” [সুনান আবু দাউদ (তাহকিক কৃত)

অধ্যায়ঃ ২/ সালাত (كتاب الصلاة) হাদিস নম্বর: [695] আল্লামা আলবানী একাডেমী-সনদ সহীহ]

এই সুতরার বাহির দিয়ে যে কেউ চলাচল করতে পারে। তবে কোন ব্যক্তি অজ্ঞতা বশত: সুতরার ভিতর দিয়ে নামাযরত ব্যক্তির সামনে দিয়ে অতিক্রম করতে চাইলে তার উচিৎ তৎক্ষণাৎ সামনে হাত বাড়িয়ে তাকে বাধা দেয়া-যেমনটি হাদিসে বর্ণিত হয়েছে।

সুতরার উচ্চতা কতটকু হওয়া উচিৎ:

সুতরার উচ্চতা হবে সাধারণভাবে কমপক্ষে পৌনে একহাত সমপরিমাণ। কারণে হাদিসে বর্ণিত হয়েছে,

مِثْلُ مُؤْخِرَةِ الرَّحْلِ تَكُونُ بَيْنَ يَدَىْ أَحَدِكُمْ ثُمَّ لاَ يَضُرُّهُ مَا مَرَّ بَيْنَ يَدَيْهِ

“তোমাদের কারও সম্মুখে হাওদার পিছনের কাঠ পরিমাণ কোনও কিছু থাকলে সেটির বহিরে দিয়ে কোন কিছুর যাতায়াত তার কোন ক্ষতি করবে না।” ইবনে নুমায়র (রহঃ) বলেন, তার বাইরে দিয়ে ‘কোনও ব্যক্তির’ যাতায়াত ক্ষতি করবে না।

(সহীহ মুসলিম, হাদিস নম্বর: [995], অধ্যায়ঃ ৪/ কিতাবুস সলাত ( كتاب الصلاة) ইসলামিক ফাউন্ডেশন)

ইমাম নওবী রহ. বলেন: ‘(উটের পিঠে রাখা) হাওদার পিছনের কাঠ’ হল, বাহুর হাড় সমপরিমাণ। যা নিম্ন পক্ষে প্রায় পৌনে এক হাত উঁচু। আর সুতরা হিসেবে যে কোন কিছু সামনে রাখা যেতে পারে।” (শরহে সহীহ মুসলিম ৪/২১৬)

যদি অতটুকু উঁচু কোন কিছু না পাওয়া যায় তাহলে এর চেয়ে কম উচ্চতা সম্পন্ন কোন জিনস রাখবে। যেমন, কোন জামা-কাপড়, মাথার টুপি, ইট, পাথর ইত্যাদি। তাও না পেলে মরুভূমি বা মাঠে নামায পড়লে একটা দাগ দিয়ে নিবে।

দাগ দেয়ার হাদিসটিকে ইবনে হাজার প্রমুখ হাসান বলেছেন। যদিও শাইখ আলবানী যঈফ বলেছেন। তবে সুতরা ছাড়া সালাত আদায় করলেও সালাত শুদ্ধ হবে ইনশাআল্লাহ।

কতটুকু দূরত্বে সুতরা রাখা উচিৎ:

মুসল্লির দাঁড়ানোর স্থান থেকে প্রায় তিন হাত দূরত্বে অথবা সেজদার স্থান থেকে এতটুকু দূরত্বে সুতরা রাখা উচিৎ যেন, সেজদার স্থান ও সুতরার মাঝখান দিয়ে একটা ছাগল অতিক্রম করতে পারে। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে:

আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. যখন কা‘বা শরীফে প্রবেশ করতেন তখন সামনের দিকে চলতে থাকতেন এবং দরজা পেছনে রাখতেন। এভাবে এগিয়ে গিয়ে যেখানে,

حَتَّى يَكُونَ بَيْنَهُ وَبَيْنَ الْجِدَارِ الَّذِي قِبَلَ وَجْهِهِ قَرِيبًا مِنْ ثَلاَثَةِ أَذْرُعٍ

তাঁর ও দেওয়ালের মাঝে প্রায় তিন হাত পরিমাণ ব্যবধান থাকতো, সেখানে তিনি সালাত আদায় করতেন।”

(সহীহ বুখারী, হাদিস নম্বর: [506] অধ্যায়ঃ ৮/ সলাত (كتاب الصلاة) তাওহীদ পাবলিকেশন)

অন্য হাদিসে রয়েছে, সাহ্‌ল ইবনে সা‘দ আস্‌ সা‘ইদী রা. থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন,

كَانَ بَيْنَ مُصَلَّى رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم وَبَيْنَ الْجِدَارِ مَمَرُّ الشَّاةِ

“রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর সলাতের স্থান এবং (তাঁর সামনের) দেয়ালের মাঝখান একটি ছাগল চলাচল করার পরিমাণ প্রশস্ত ছিল। (অর্থাৎ-তিনি সুত্‌রাহ্‌ এর খুব কাছাকাছি দাঁড়াতেন)।” (সহীহ বুখারী ও মুসলিম)

অর্থাৎ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর সেজদার স্থান থেকে কা’বার দেয়ালের মাঝে একটা ছাগল অতিক্রম হওয়ার সমপরিমাণ দূরত্ব ছিলো। এতে প্রমাণিত হয়, সুতরার কাছাকাছি দাঁড়ানো সুন্নত। (যেমনটি বলেছেন ইমাম নওবী রহ.)

কোন কোন আলেম উভয় হাদিসের সমন্বয় করতে গিয়ে বলেন, দাঁড়ানো অবস্থায় মুসল্লির পায়ের স্থান থেকে প্রায় তিন হাত আর সেজদা অবস্থায় ছাগল অতিক্রম করার সমপরিমাণ দূরত্ব থাকবে।

শাইখ আলবানী ‘সিফাতুস সালাত’ গ্রন্থে বলেন:

وكان صلى الله عليه وسلم يقف قريبا من السترة ، فكان بينه وبين الجدار ثلاثة أذرع , و بين موضع سجوده ، والجدار ممر شاة

“নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সুতরার এতটা নিকটে দাঁড়াতেন যে, তার মাঝে ও দেয়ালের মাঝে তিন হাত পরিমাণ আর সেজদার স্থান থেকে দেয়ালের মাঝে একটা ছাগল অতিক্রম করার সমপরিমাণ স্থান থাকত।” (সিফাতুস সালাত ১/১১৪)

আল্লাহু আলাম…

উত্তর প্রদানে:

আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল মাদানী

লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়,
সৌদি আরব

দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব

Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

Donate

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.