বিয়ে করার চেয়ে বিয়ে রক্ষা করা কঠিন

0

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম। পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি-

marr

লেখক : মেজবাহুল ইসলাম

ঘনিষ্ঠ এক doctor friend বলেছিল,

“এখন world এর most discussed & burning topic হচ্ছে ‘Sex’. এর মাঝেই ঘুরপাক খাচ্ছে বেশিরভাগ মানুষ।”

শুনে মজা পেয়েছিলাম কিন্তু হাসিতে উড়িয়ে দিয়েছিলাম। বিভিন্ন ধরনের মানুষ এর সাথে যত বেশি মিশছি কথাটির সত্যতা ততই বেশি দেখছি।

ভাবী, কি অবস্থা আপনার জামাই এর? ঠিক আছে তো নাকি medicine নিতে হচ্ছে!আমার টা রে দিয়ে আর হচ্ছে না ভাবী। সপ্তাহে ক’ বার!!

এরপর কার husband কেমন perform করছে সেটা নিয়ে details discussion.

(কথোপকথন এর topic হচ্ছে husband এবং এতে অশ্লীল শব্দের প্রয়োগ এতো বেশি যে discussion গুলি উপস্থাপন করা সম্ভবপর নয় )

শিক্ষিত মায়েরা ছোট ছেলে / মেয়ে কে নিয়ে যখন স্কুলে যান তখন অবসর সময়ে তাদের করা discussion এর part এটি। ১০০% female guardian দের আড্ডায় উপরোক্ত আলোচনা হয় কি না জানিনা তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে।

আমার জানামতে এমন কোন সুস্থ husband দেখি নাই যে তার best friend এর সাথেও স্ত্রীর সাথে একান্তে কাটানো সময় নিয়ে আলোচনা করে থাকে।

সারাদিন অফিসে ব্যস্ত থাকেন। তাই ভাবছেন স্ত্রীকে দিয়ে জব করাবেন কিংবা দ্রুত বাচ্চা নিয়ে ব্যস্ত করে দিবেন যাতে extra marital affair নিয়ে tension না করতে হয়!

লাভ নেই। অফিস কলিগ/পাশের বাড়ির ভাবী / গার্ডিয়ানদের আড্ডা সকল ক্ষেত্রেই সংসার ভাঙার উপাদান বিদ্যমান এবং topic of discussion এইটাই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে।

প্রযুক্তি হাতের মুঠোয়। আশেপাশে তো আর লুচ্চার অভাব নেই যারা স্বামী – স্ত্রীর সাময়িক মনমালিন্য এর সুযোগ লুফে নিয়ে থাকে।

গোপনীয় বিষয়কে গোপন না রাখলে তৃতীয় পক্ষ সেখানে বাসা বাধে…

Husband এর সাথে সব কিছু ভালভাবেই চলছে। এরপরও ভাবীদের কথায় কিংবা প্রযুক্তির সহায়তায় impressed হয়ে পরকীয়ার সুত্রপাত। পক্ষান্তরে একটা সময়ে যেয়ে বিচ্ছেদ। ৪০ উর্ধ্ব বেশ কয়েকজন স্ত্রী দের কথা শুনেছি যারা কেউই সুখে নেই। সবার মনে অশান্তি।

মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন এমন মা ও এখন যেকোন কারনেই হোক প্রযুক্তির সহায়তায় পরকীয়াতে লিপ্ত।

একজন husband এর থেকে শুনেছিলাম, তার একটা লক্ষ্য হচ্ছে সুন্দরী মেয়ের সাথে পরকীয়া করা।

বিয়ের পর বউ থাকবে কি না এটা নিয়েই যদি এতো টেনশন করতে হয় তাহলে বলতেই হবে যে, বিয়ের জন্য পাত্রী selection wrong ছিল।

মেয়ের চরিত্রের চেয়ে যদি career, সৌন্দর্য এবং মেয়ের বাবার টাকার priority বেশি দিয়ে থাকেন তাহলে এসবের জন্য প্রস্তুত থাকা জরুরী।

সমস্যা গুলি শিক্ষিত সমাজেই আজ বেশি।

Life partner selection এ যে পরিমাণ hassle এর মাঝে পড়তে হচ্ছে সেখানে বিয়ে পরবর্তী সংসার জীবন তো রীতিমত যুদ্ধক্ষেত্র মনে হতে পারে অনেকের।

আমার ব্যক্তিগত মন্তব্য:

সমাজের স্বামী-স্ত্রী আজ উভয়ই বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িত। মানসিক কিংবা শারীরিকভাবে।

প্রশ্ন হচ্ছে এমন হচ্ছে কেন? বিয়ের শুরুতে চোখে রঙ্গিন চশমা, এরপর আর ভালোলাগে না?

নাকি আমাদের ধর্মীয় মূল্যবোধ ও স্রষ্টার ভয় এতোটাই নিম্নপর্যায়ে চলে গেছে, এতোটাই ভোগবাদী চিন্তায় আমরা আচ্ছন্ন যে, নৈতিকতা- অনৈতিকতা কিসে, মানবতা আর অমানবিকতা কিসে, অন্যায় আর ন্যায় কিসে- সেটাই ভুলে গেছি?

আল্লাহ আমাদের এমন স্বামী কিংবা স্ত্রী হওয়া থেকে রক্ষা করুক।
Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

Donate

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.