আগুন কিয়ামতের সর্বশেষ আলামত

0
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম। পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি-

লেখক: আনিসুর রাহমান

হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন:

ততক্ষন পর্যন্ত কিয়ামত সংঘটিত হবে না, যতক্ষন না তোমরা দশটি বিশেষ আলামত দেখতে পাবে। তারপর তিনি ধোয়া, দাজ্জাল, দাব্বা, পশ্চিমাকাশ হতে সূর্যোদয় হওয়া, মারইয়াম পুত্র ঈসা (আঃ)-এর অবতরন, ইয়াজুজ-মাজুজ এবং তিনবার ভূখণ্ড ধ্বসে যাওয়া তথা পূর্ব দিকে ভূখণ্ড ধ্বস, পশ্চিম দিকে ভূখণ্ড ধ্বস এবং আরব উপদ্বীপে ভূখণ্ড ধ্বস। এ আলামত সমুহের শেষে এক আগুন প্রকাশিত হবে যা ইয়ামান মানুষকে হাশরের ময়দানের দিকে হাঁকিয়ে নিয়ে যাবে।’’ মুসলিম ৭১৭৭-(৩৯/২৯০১)

অন্য বর্ণনায় রয়েছে,

সর্বশেষ ‘আদান’ দেশের গভীর অঞ্চল থেকে এক ধরনের আগুন বের হবে, যা মানুষকে (হাশরের ময়দানের দিকে) তাড়িয়ে নিয়ে যাবে’’ মুসলিম ৭১৭৮-(৪০/…)

 আবদু ইবন উমার (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন:

‘’অচিরেই হাযরামাউত অথবা হাযরামাউত সাগর থেকে কিয়ামতের পূর্বে এক ধরনের আগুন বের হবে, যা মানুষকে (হাশরের মাঠে) একত্রিত করবে’’ আহমাদ ৭/১৩৩; তিরমিযি/তুহফা ৬/৪৬৩-৪৬৪; সহীহুল জামে আস-সাগীর ৩৬০৩ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেন,

ততক্ষন পর্যন্ত কিয়ামত সংঘটিত হবে না, যতক্ষন না হিজাযভুমি থেকে একটি অগ্নি প্রকাশিত হবে। যা বুসরায় অবস্থানরত উটের গলা পর্যন্ত আলোকিত করে দিবে’’ বুখারী ৭১১৮; মুসলিম ৭১৮১-(৪২/২৯০২)

আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেন:

“লোকদেরকে তিন শ্রেনিতে ভাগ করে সমবেত করা হবে। প্রথম দলে আশা পোষণকারী এবং ভীত সন্ত্রস্ত লোকদের দল। দ্বিতীয় দলে সেসব লোক, যাদের দু’জন থাকবে একটি উটের উপর, কোনো উটের উপর তিনজন, কোনোটির উপর চারজন, আর কোনোটির উপরে আরোহণ করবে দশজন। অবশিষ্টরা হবে সেসব লোক যাদেরকে আগুন তাড়িয়ে নিয়ে যাবে। তারা যেখানে রাত্রি যাপন করবে আগুনও তাদের সঙ্গে রাত কাটাবে। তারা যেখানে বিশ্রাম নিবে আগুনও সেখানে বিশ্রাম নিবে। তাদের যেখানে সকাল হবে আগুনও তাদের সঙ্গে থাকবে। আর যেখানেই তাদের সন্ধ্যা হবে একই সঙ্গে আগুনও তাদের সাথে থাকবে’’ বুখারী ৬৫২২; মুসলিম ৭০৯৪-(৫৯/২৮৬১)

আবু সারীহাহ হুযায়ফা বিন আসীদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ

‘’দশটি নিদর্শন প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত কিয়ামত হবে না। পশ্চিম দিক থেকে সূর্যোদয়, মসীহ দাজ্জালের আবির্ভাব, ধোয়া নির্গত হওয়া, দাব্বাতুল আরদ প্রকাশ পাওয়া, ইয়াজুজ-মাজুজের আবির্ভাব, ঈসা বিন মারইয়াম (আঃ)-এর অবতরন, তিনটি ভূমিধ্বস- প্রাচ্যদেশে একটি, পাশ্চাত্যে একটি এবং আরব উপদ্বীপে একটি। এডেনের নিম্নভুমি ‘আদান’-এর কুপ থেকে অগ্ন্যূৎপাত হবে যা মানুষদেরকে হাশরের ময়দানে হাঁকিয়ে নিয়ে যাবে। তারা রাতে নিদ্রা গেলে এই আগুন থেকে থাকবে এবং তারা চলতে থাকলে আগুনও তাদের অনুসরন করবে’’ মুসলিম ৭১৭৮-(৪০/…); ইবন মাযাহ ৪০৫৫; তিরমিযি ২১৮৩; আবু দাউদ ৪৩১১

আবদুল্লাহ ইবন আমর (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ

’একদা পূর্ব থেকে দিকের লোকদের উপর এক ধরনের আগুন পাঠানো হবে, যা তাদেরকে পশ্চিম দিকে হাঁকিয়ে নিয়ে যাবে এবং যা তাদের সাথেই রাত্রি যাপন করবে ও দুপুর বেলায় বিশ্রাম নিবে। তাদের কেউ পিছনে পড়ে গেলে, আগুন তাকে জ্বালিয়ে ফেলবে। আগুন তাদেরকে এমনভাবে হাঁকিয়ে নিবে, যেমনিভাবে হাঁকিয়ে নেয়া হয় পা ভাঙ্গা উটকে’’ হাকিম ৪/৫৪৮; মাযমাউয যাওয়াইদ ৮/১২

নোটঃ এই আগুনের পর আর বড় কোনো আলামত নেই। এরপর দুনিয়ায় আর কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না। এর পরপরই শিঙ্গায় ফুঁ দেয়া হবে। কোনো বর্ণনায় রয়েছে, উক্ত আগুন ইয়ামান থেকে থেকে বের হবে। আবার কোনো বর্ণনায় রয়েছে উক্ত আগুন মানুষকে পূর্ব দিক থেকে পশ্চিম দিকে হাঁকিয়ে নিয়ে যাবে। এতে বৈপরীত্য মনে হলেও, মুলত কোনো বৈপরীত্য নেই। কারন তা সর্বপ্রথম ইয়ামান থেকে বের হলেও পরিশেষে তা পুরো দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়বে। আর উক্ত আগুন মানুষকে পূর্ব দিক থেকে পশ্চিম দিকে হাঁকিয়ে নেয়া মানে শুধু পূর্ব থেকে পশ্চিম দিকে নয়। বরং সর্ব দিক থকে হাঁকিয়ে সকল মানুষকে এক জায়গায় একত্রিত করা হবে। (আল্লাহ ভালো জানেন)
সহায়ক গ্রন্থঃ
১) কুরআন ও সহীহ হাদীসের আলোকে কিয়ামতের ছোট-বড় নিদর্শনসমুহ- মোস্তাফিযুর আল-মাদানী।
২) কিয়ামতের আলামত- আবদুল্লাহ শাহেদ আল-মাদানী।
৩) কিয়ামতের আলামত বর্ণনা- মৃত্যুর পর অনন্ত যে জীবন- ইকবাল কিলানী।
Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

Donate

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.